1. admin@agrajatrabd.news : admin :
বিজ্ঞপ্তিঃ-
জেলা-উপজেলায় সাংবাদিক নিয়োগ চলছে যোগাযোগ ০১৩ ০৯ ৩২ ৩২ ৮১
শিরোনাম
হাইমচর জমিন সংক্রান্ত বিরাধ নিরীহ পরিবারর উপর হামলা\ আহত ৩ সোনাইমুড়ীতে কৃষকলীগের বিজ বিতরণ বাংলাদেশ হেলথ্ এ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা শাখার উদ্যােগে দাবি আদায়ের লক্ষ্যে কর্মবিরতি ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত বাদল রায়ের মৃত্যুতে ঝিনাইদহে শোকসভা মিয়ানমার কক্সবাজারের ৯ জেলেকে ফেরত দিল। জাতীয় শ্রমিক লীগ হরণী ইউনিয়ন শাখায় নবনির্বাচিত কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত। সিলেট-ভোলাগঞ্জ রোডে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনা ছাতকের মাস্ক ব্যবহার না করায় জরিমানা সুনামগঞ্জে আদালতের ব্যতিক্রম রায়ে জোড়া লেগেছে ৪৭ টি সংসারে খুলনার দাকোপে নবাগত ইউ,এন, ও “মিন্টু বিশ্বাসে’র” কর্মস্থলে যোগদান।

টানা ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে বঙ্গোপসাগরে ফিরছে জেলেরা

  • Update Time : শুক্রবার, ২৪ জুলাই, ২০২০
  • ৭৪ বার পড়া হয়েছে

মেহেদী হাসানঃ
আবারও প্রাণচাঞ্চল্যে মুখরিত হচ্ছে জেলে পল্লিগুলো।
বঙ্গোপসাগরে মাছ শিকারে দীর্ঘ ৬৫ দিনের সরকারি নিষেধাজ্ঞা শেষ হয়েছে বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) মধ্যরাতে। ইতোমধ্যেই গভীর সাগরে যাবার প্রস্তুতি নিয়েছেন অনেকেই। আবহাওয়ার কিছুটা উন্নতি হলেই ট্রলারগুলোতে বাজার-সদায় আর বরফ ভর্তি করে তারা ছুটবেন মাছ শিকারে। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে বরগুনা জেলাসহ আশপাশের উপকূলীয় এলাকাগুলোতে থেমে থেমে ভারি বৃষ্টি এবং কালো মেঘ জমে আছে,তাছাড়াও সাগর রয়েছে উত্তাল। সমুদ্র বন্দরে জারি রয়েছে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত। এদিকে কর্মহীন দীর্ঘ সময় কাটানোর পর এই নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় ইতোমধ্যেই জেলে-পাইকার আর আড়ৎদারের পদচারণায় মুখর বরগুনার জেলার মৎস্যবন্দরসহ বরগুনা সদর, আমতলী ও তালতলী পাথরঘাটার উপজেলার জেলে অধ্যুষিত বিভিন্ন এলাকা। প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে অাসার কথা বলছে জেলে পল্লিগুলোতেও। দীর্ঘদিন বঙ্গোপসাগরে মাছ আহরণ বন্ধ থাকায় এবার জালে বেশি মাছ ও বড় মাছ পড়বে এমনটাই প্রত্যাশা জেলেদের। বরগুনা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, প্রাকৃতিক ভারসাম্য ঠিক রেখে বঙ্গোপসাগরে সহস্র প্রজাতির মৎস্য সম্পদের সুরক্ষায় চলতি বছরের ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিন সাগরে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। ওই সময় সচিবালয়ে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আয়োজিত সভায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ. ম রেজাউল করিম বলেন, আগামী ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিন সমুদ্রে ট্রলারের মাধ্যমে সব ধরনের মাছ ও চিংড়ি আহরণ নিষিদ্ধ থাকবে। সামুদ্রিক মাছের প্রজনন ও সংরক্ষণে বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের সীমানায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ। আরও বলেন, দেশের অর্থনীতির জন্য, মানুষের পুষ্টি বৃদ্ধির জন্য এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে হবে। মাছ, মাংস, দুধ, ডিমের ক্ষেত্রকে সমৃদ্ধ করতে না পারলে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেও সংকট থেকে যেতে পারে। সমুদ্রে মাছ ধরা নিষিদ্ধকালীন মৎস্য আহরণে বিরত থাকা জেলেদের আমরা মাসিক ৪০ কেজি হারে খাদ্য সহায়তা দিচ্ছি। মৎস্যজীবীদের খাদ্য সহায়তা কর্মসূচি খাতের অনেক উন্নতি ঘটেছে। খাদ্য সহায়তায় পরিবহন খরচ ছিল না। এখন পরিবহন খরচ সরকারের পক্ষ থেকে পর্যায়ক্রমে পৌঁছানো হবে। তাছাড়াও অনেক দিন ধরে অবরোধ এর কারনে জেলেরা বাড়িতেই বসা করোনার কারনে তেমন কোথাও কাজ ও পাইনি,তাই প্রায় সবাই অভাবের ভিতরে দিন কাটাচ্ছে কারন তাদের একমাত্র ভরসা মাছ ধরা,তাই এখন যদি অাবহওয়া ঠিক হয় অার জেলেদের পত্যাশা মত মাছ পায় তাহলেই তারা তাদের কিছুটা হলেও ক্ষতি প্রশুয়ে উঠতে পারবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৪৫৫,০৯১
সুস্থ
৩৬৯,৪৯২
মৃত্যু
৬,৪৯৬
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
২,২৯২
সুস্থ
২,২৭৪
মৃত্যু
৩৭
স্পন্সর: একতা হোস্ট
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব