1. admin@agrajatrabd.news : admin :
বিজ্ঞপ্তিঃ-
জেলা-উপজেলায় সাংবাদিক নিয়োগ চলছে যোগাযোগ ০১৩ ০৯ ৩২ ৩২ ৮১
শিরোনাম
না ফেরার দেশে চলে গেলেন হাইমচর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতালেব জমাদার বাসাইল-সখিপুরে সাবেক সংসদ সদস্য অনুপম শাজাহান জয় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন লর্ডহার্ডিঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কৌশলী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত কুচক্রী মহল হাইমচরে হেলথ এসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশনের বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কর্ম বিরতি চলছে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৬ ফার্মেসিকে জরিমানা ডিআইজি হাবিবের মহানুভবতায় গোরস্থানের জমি পেলো ঠিকানাহীন বেদে সম্প্রদায় জয়পুরহাট ক্ষেতলালে আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ঝিনাইদহে গেল ৪৮ বছরেও স্বীকৃতি পাননি মুক্তিযুদ্ধে স্বজন হারানো পরিবারটি। হাইমচর জমিন সংক্রান্ত বিরাধ নিরীহ পরিবারর উপর হামলা\ আহত ৩ সোনাইমুড়ীতে কৃষকলীগের বিজ বিতরণ

চাঁদপুরের ৬৬টি এতিমখানায় ৩.২৪’কোটি টাকা বরাদ্দ, জনমনে অভিযোগ

  • Update Time : রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০
  • ১৭৯ বার পড়া হয়েছে

রিপোর্টঃ হাছিনুর আকরাম

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধিনস্থ ক্যাপিটেশনভুক্ত চাঁদপুরের ৬৬টি এতিমখানায় বাৎসরিক বরাদ্দ সোয়া ৩কোটি টাকা। ক্যাপিটেশন গ্রান্টের এসব এতিমখানার কিছু প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন প্রাপ্তি আর কিছু প্রতিষ্ঠানের ক্যাপিটেশন গ্রান্ট অপ্রাপ্তি নিয়ে রয়েছে জনমনে ক্ষোভ এবং অসন্তোষ।

দরিদ্র এতিম শিশুদের মানব সম্পদে পরিণত করার লক্ষে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের ধারাবাহিকতায় চাঁদপুর জেলার ৬৬টি বেসরকারী ক্যাপিটেশনভুক্ত এতিমখানার ১৩’শ৩২’জন এতিমের জন্য বাৎসরিক বরাদ্দ হয়েছিল গত অর্থবছরে ৩’কোটি ২৪’লাখ ২৪’হাজার টাকা। এই করোনাকালীন সময়ে এতিখানাগুলো বন্ধ থাকলেও অর্ধ অর্থবছরের ১’কোটি ৬২’লাখ ১২’হাজার টাকা পৌঁছে গেছে স্ব স্ব এতিমখানাগুলোতে।
জনমনে প্রশ্ন রয়েছে এই টাকাগুলো এতিমদের জন্য ব্যয় করা হয় কিনা। সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায় ক্যাপিটেশনের অনুমোদন নিয়ে রয়েছে অসন্তোষ এবং অভিযোগ। অনেক বড় প্রতিষ্ঠান অনুমোদন পায়নি। আবার এমনও প্রতিষ্ঠান আছে ক্যাপিটেশনের দ্বিগুণ ছাত্র থাকার কথা থাকলেও ছাত্র সংখ্যা একেবারেই কম। সদর উপজেলায় অনেক বড় বড় নিয়মিত প্রতিষ্ঠান থাকার পরও ক্যাপিটেশন পেয়েছে মাত্র ছয়টি। সেখানে কচুয়া উপজেলায় ক্যাপিটেশন পেয়েছে ১৩টি প্রতিষ্ঠান! শাহরাস্তি উপজেলায় দুই শতাধিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দিয়েছে ছয়টি প্রতিষ্ঠানকে। এই ছয়টির মধ্যে পদুয়া এতিমখানা, গোলদিঘি এতিমখানা, মনুমিয়া ও সুলতানা বালিকা এতিমখানা এবং নোয়াগাঁও ইসলামিয়া সুফিয়া এতিমখানা এই ৪’টি প্রতিষ্ঠান একবারেই পাশাপাশি পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে। অন্যদিকে শাহরাস্তির গ্রামের পর গ্রাম, ইউনিয়নের পর ইউনিয়নে দুইশতাধিক এতিমখানা থাকার পরও পাইনি অনুমোদন। এছাড়া মাদ্রাসার আভ্যন্তরিন পরিবেশ, বাচ্চাদের থাকার জায়গা এবং বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা নিয়েও রয়েছে অভিযোগ। সাধারণ মানুষ এবং যেসকল বড় প্রতিষ্ঠান অনুমোদন পায়নি তারা প্রতিবেদকের কাছে জানতে চেয়েছে কিসের ভিত্তিতে অনুমোদন দেওয়া হয়! তারা দাবি করে এইসব অসংগতি দূর করে প্রকৃত প্রতিষ্ঠানগুলোকে অনুমোদন দেওয়া হোক।

গোলদিঘি ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ বলেন, “তিন কিলোমিটারের মধ্যে একটি ক্যাপিটেশ গ্রান্ট প্রাপ্ত এতিমখানা থাকার কথা থাকলেও কি করে পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে ৪টি প্রতিষ্ঠান ক্যাপিটেশন গ্রান্ট প্রাপ্ত হয়, সেটি একটি প্রশ্ন!

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কানিজ ফাতিমার কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রতিবেদককে বলেন, “আপনি একটা তালিকা দেন, আমি সেটা সমাজসেবা অফিসে পাঠাব ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।”

এব্যাপারে চাঁদপুর জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক রজত শুভ্র সরকার বলেন, “তিন কিলোমিটারের মধ্যে প্রতিষ্ঠান একের অধিক খাকবে না, এটি একটি অলিখিত নিয়ম। এসব প্রতিষ্ঠানগুলো কিসের ভিত্তিতে অনুমোদন পেয়েছে তা আমার জানা নেই। অনেক আগেই এসব প্রতিষ্ঠান অনুমোদন পেয়েছে। তবে এসব প্রতিষ্ঠানের স্ব স্ব উপজেলা সমাজসেবা অফিসার তদন্তের ভিত্তিতে অভিযোগ দিয়ে ব্যবস্থা নিতে পারবে।”

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৪৫৫,০৯১
সুস্থ
৩৬৯,৪৯২
মৃত্যু
৬,৪৯৬
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
২,২৯২
সুস্থ
২,২৭৪
মৃত্যু
৩৭
স্পন্সর: একতা হোস্ট
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব